প্রিপেইড মিটারের সমস্যা ও সমাধান । Prepaid Meter Somossa O Somadhan 2024

বৈদ্যুতিক প্রিপেইড মিটার হলো এক ধরনের বিদ্যুৎ পরিমাপক যন্ত্র/ডিভাইস যেখানে বিদ্যুৎ ব্যবহারের পূর্বে টাকা রিচার্জ করতে হয় এবং এরপরই বিদ্যুৎ ব্যবহার করা যায়। ব্যবহারের আগেই অর্থ প্রদান করে বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হয় বলেই এধরনের বৈদ্যুতিক মিটারকে প্রি-পেমেন্ট মিটার বা প্রিপেইড মিটার বলা হয়।

সূচীপত্র

প্রিপেইড মিটারের সমস্যা ও সমাধান । Prepaid Meter Somossa O Somadhan 2023
প্রিপেইড মিটারের সমস্যা ও সমাধান । Prepaid Meter Somossa O Somadhan 2023

বাংলাদেশে এখন কেউ নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে গেলে প্রি-পেমেন্ট মিটার বা প্রিপেইড মিটারের মাধ্যমেই সংযোগ গ্রহন করতে হবে। বর্তমানে ব্যাপকভাবে ব্যবহার হচ্ছে প্রি-পেমেন্ট মিটার। প্রি-পেমেন্ট/প্রিপেইড মিটারের কিছু সুবিধার জন্য ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রিপেইড মিটারের সুবিধার সাথে সাথে কিছৃ অসুবিধাও রয়েছে। বাংলাদেশে প্রিপেইড মিটার কনসেপ্টটি নতুন বিধায় ব্যবহারের সময় কিছু অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে বিদ্যুৎ গ্রাহকদের।

প্রিপেইড মিটারের সমস্যা ও সমাধান

আজকের নিবন্ধে আমরা প্রিপেইড মিটারের সমস্যা ও তার সমাধান নিয়ে আলোচনা করবো। প্রিপেইড মিটারের যে সকল কমন সমস্যায় পড়তে হয় যেমন প্রিপেইড মিটার ব্যালেন্স চেক করার নিয়ম,প্রিপেইড মিটারে ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স নেয় কিভাবে,প্রিপেইড মিটার ইমারজেন্সি ব্যালেন্স চেক করে কিভাবে,প্রিপেইড মিটার হেল্প লাইন,প্রিপেইড মিটার রিচার্জ হচ্ছে না,প্রিপেইড মিটার লক হওয়ার কারণ,প্রিপেইড মিটার লক হলে করণীয়,প্রিপেইড মিটার রিচার্জ করার নিয়ম,প্রিপেইড মিটার ইউনিট রেট ২০২৪,প্রিপেইড মিটারের ব্যাটারি খারাপ হলে করণীয়,প্রিপেইড মিটারের লোড বৃদ্ধি করার উপায়,প্রিপেইড মিটারের সার্ভিস তার পরিবর্তন করতে কত টাকা খরচ হয়,প্রিপেইড মিটারের লোড বৃদ্ধি করতে কত টাকা লাগে,প্রিপেইড মিটারের দাম কত,প্রিপেইড মিটারের শব্দ বন্ধ করার কোড,Prepaid Meter Somossa O Somadhan 2024।

প্রিপেইড মিটার ব্যালেন্স চেক করার নিয়ম

প্রিপেইড মিটারের যেহেতু টাকা রির্চাজ করে বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে হয় তাই মিটারের ব্যালেন্স/টাকা কত রয়েছে তা দেখাটাও জরুরি। দেশে অনেব ব্যান্ডের প্রিপেইড মিটার এসেছে এগুলোর আবার ব্যালেন্স চেক করার কোড ভিন্ন ভিন্ন তবে বর্তমানে সকল কোম্পানির মিটারের কোড ইউনিফাইড করা হয়েছে মানে সকল কোম্পানির কোড এক। প্রিপেইড মিটার ব্যালেন্স চেক করার কোড ৮০১। ৮০১ কোডটি মিটারে চাপলে বর্তমান ব্যালেন্স/টাকা দেখা যাবে। এছাড়া ইউনিফাইড সিস্টেমের পূর্বের সকল মিটারের কোড এখানে দেখতে পারবেন।

প্রিপেইড মিটারে ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স নেয় কিভাবে?

প্রিপেইড মিটারে ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স নিতে হলে আপনাকে ৮১১ শর্ট কোড মিটারে লিখে এন্টার/ওকে বাটন চাপলে ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স চলে আসবে। বিদ্যুৎ বিতরণকারী প্রতিষ্ঠান ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স লিমিট মিটারে নির্ধারন করে দেয়। সাধারনত ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স সিঙ্গেল ফেজ মিটারে এ ১০০ টাকা এবং থ্রি ফেজ মিটারে এ ২৫০ টাকা নির্ধারন হয়। ৮১১ কোড আপনার মিটারে কাজ না করলে এখানে দেখুন।

প্রিপেইড মিটার ইমারজেন্সি ব্যালেন্স চেক করে কিভাবে?

মিটারে ইমারজেন্সি ব্যালেন্স নিয়েছেন কিন্তু কত টাকা খরচ হলো তা দেখার প্রয়োজন আছে। প্রিপেইড মিটার ইমারজেন্সি ব্যালেন্স চেক করার জন্য ৮১০ শর্ট কোড মিটারে লিখে এন্টার/ওকে বাটন চাপলে কত টাকা ইমারজেন্সি ব্যালেন্স ব্যবহার করেছেন তা দেখা যাবে। উল্লেখ্য ইমারজেন্সি ব্যালেন্স গ্রহন করে থাকলে তা (-) নেগেটিভ ব্যালেন্স দেখাবে যা পরবর্তিতে টাকা রিচার্জে কেটে নিবে।

প্রিপেইড মিটার হেল্প লাইন

প্রিপেইড মিটার সমস্যা হলে কোথায় যোগাযোগ করবেন ভেবে পাচ্ছেন না। প্রত্যেক বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠান তাদের গ্রাহকদের সেবা দিতে সেন্টাল অভিযোগ কেন্দ্র বা গ্রাহক হেল্প লাইন চালু করেছে। সকল প্রতিষ্ঠানের হেল্প লাইন নাম্বার নিচে দেওয়া হলোঃ

বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠানহেল্প লাইন/গ্রাহকসেবা নাম্বার
বিপিডিবি১৬২০০
বিআরইবি০১৭৯২-৬২৩৪৬৭
নেসকো১৬৬০৩
ওজোপাডিকো১৬১১৭
ডিপিডিসি১৬১১৬
ডেসকো১৬১২০

প্রিপেইড মিটারের দাম কত?

যেহেতু নতুন বিদ্যুৎ সংযোগে প্রিপেইড মিটার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে সেহেতু প্রিপেইড মিটার কেনার প্রয়োজন হবে। অফিস মিটার সরবরাহ করলে প্রতিমাসে ভাড়া নিবে সিঙ্গেল ফেজ মিটারে ৪০ টাকা ও থ্রি ফেজ মিটারে ২৫০ টাকা। বাংলাদেশে বর্তমানে ইস্টার্ন (যমুনা মিটার),সেল,জেএফজে,এফজিএফ,ক্যাপিটাল,হোসাফ,কেমকো কোম্পানির মিটার বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। দেশের বাজরে প্রিপেইড মিটারের দাম ৫৫০০ টাকা থেকে ৬০০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

প্রিপেইড মিটারের ভাড়া কত দিন নিবে?

বিতরণ প্রতিষ্ঠান সমূহ গ্রাহকের সুবিধার জন্য প্রথমে ভাড়ার বিনিময়ে প্রিপেইড মিটার সরবরাহ করে। অফিস মিটার সরবরাহ করলে প্রতিমাসে ভাড়া নিবে সিঙ্গেল ফেজ মিটারে ৪০ টাকা ও থ্রি ফেজ মিটারে ২৫০ টাকা। যত দিন আপনি অফিসের মিটার ব্যবহার করছেন সে পর্যন্ত আপনাকে ভাড়া হিসেবে নির্ধারিত টাকা প্রতিমাসের রিচার্জে কেটে নিবে।

প্রিপেইড মিটার রিচার্জ হচ্ছে না?

প্রিপেইড মিটার রিচার্জ না হওয়ার বেশ কিছু কারণ রয়েছে। প্রিপেইড মিটার রিচার্জ না হওয়ার কারণ গুলোর মধ্যে কমন কিছৃ কারণ হচ্ছে আপনার কাছে যে টাকা বিতরণ প্রতিষ্ঠান পাবে সেই এমাউন্ট না দেওয়া,পোষ্ট পেইড কালিন সময়ে বকেয়া বিল থাকা,মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে রিচার্জে সার্ভার প্রবলেম থাকলে টাকা রিচার্জ করতে পারবেন না। সকল বিষয়ে আপনি আপ টু ডেট থাকলে রিচার্জ সমস্যার সমাধান পেয়ে যাবেন। প্রিপেইড মিটার রিচার্জ পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত লেখাটি এখানে দেখতে পারেন।

প্রিপেইড মিটার লক হওয়ার কারণ

প্রিপেইড মিটারে বিদ্যুৎ চুরি রুধে একটা সিস্টে রাখা হয়েছে যেখানে মিটারের বেস প্লেট খুলা বা মিটারে কৃত্তিম পদ্ধতি করার চেষ্টা করলে মিটারটি টেম্পার বা লক হয়ে যায়। মিটার টেম্পার হয়ে গেলে তখন আর মিটার আউটপুটে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে না। মিটার টেম্পার করা একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

প্রিপেইড মিটার লক হলে করণীয়

মিটার টেম্পার বা লক হয়ে গেলে বা করে ফেললে মিটারের ভিডিও বা ছবি তুলে নিয়ে সরাসরি বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে হবে। যদি আপনি বিদ্যুৎ চুরি বা কৃত্তিম পদ্ধতি অবলম্বনের বিষয়টি প্রমানিত হয় তবে বিদ্যুৎ আইন অনুযায়ী জরিমান বিল অথবা মামলা দায়ের করতে পারে। অনেক সময় টেকনিক্যাল ত্রুটিতে প্রিপেইড মিটার টেম্পার হতে দেখা যায় সেক্ষেত্রে বিনা খরচে আপনার সংযোগ সচল করে দিবে বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠান।

প্রিপেইড মিটারের ব্যাটারি খারাপ হলে করণীয়

প্রিপেইড মিটারের ব্যাটারি খারাপ হয়ে গেলে তখন আর আপনি মিটারে মাধ্যমে বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারবেন না। প্রিপেইড মিটারের ডিসপ্লেতে খেয়াল করলে দেখবেন ব্যাটরির একটি সিম্বল লাফালাফি করছে অথবা ৮০৭ কোড চাপলে ব্যাটারি লো লেখা আসবে তখন বুঝতে হবে ব্যাটারি খারাপ হয়ে গেছে। এমন পরিস্তিতির উদয় হলে মিটারের ভিডিও বা ছবি তুলে নিয়ে সরাসরি বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে হবে। অফিস মিটার সরবরাহ করলে বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠান অথবা বাজর থেকে কিনে থাকে মিটার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বিনা খরচে আপনার ব্যাটরি পরিবর্তন করে দিবে।

প্রিপেইড মিটারের লোড বৃদ্ধি করার উপায়

বিদ্যুৎ সংযোগ গ্রহনের সময় একটা লোডে চুক্তিবদ্ধ হতে হয়। চুক্তিবদ্ধ লোডের থেকে আপনার লোডের চাহিদা বেশি হলে আপনার মিটার বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দিবে এরকম বার বার হলে মিটারটি অতিরিক্ত লোডের কারনে টেম্পার হয়ে যাবে। লোড বৃদ্ধি করার প্রয়োজন হলে আপনার বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠানে সরাসরি গিয়ে লোড বৃদ্ধির আবেদন করতে হবে। চুক্তি সংশোধন ফি জমা পূর্বক আপনাকে ৩ দিনের মধ্যে লোড বৃদ্ধি করে দিবে।

প্রিপেইড মিটারের লোড বৃদ্ধি করতে কত টাকা লাগে

প্রিপেইড মিটারে লোড বৃদ্ধি করতে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত বিদ্যুৎ সেবার চার্জ অনুযায়ী সিঙ্গেল ফেজ মিটারে ৪৮৩ টাকা ও থ্রি ফেজ মিটারে ১২৪২ টাকা ব্যাংকে ফি জমা পূর্বক লোড বৃদ্ধি করিয়ে নেওয়া যাবে। এ জন্য বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠানে সরাসরি গিয়ে আবেদন করতে হবে।

প্রিপেইড মিটারের শব্দ বন্ধ করার কোড

প্রিপেইড মিটারে বিভিন্ন এলার্ম দেওয়ার জন্য বুজার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যেমন টাকা/বালেন্স লো হয়ে গেলে,অবারলোড হয়ে গেছে বুজার বিপ শব্দ দিয়ে আপনাকে সর্তক করবে। এই বুজার এর বিপ শব্দ অনেকের কাছে পছন্দ নাও হতে পারে বা শব্দ দূষণ ও হতে পারে। প্রিপেইড মিটারের শব্দ বন্ধ করার জন্য ৮১২ শর্ট কোডটি মিটারে লিখে এন্টার/ওকে বাটন চাপলেই এলার্ম বুজারটি বন্ধ হয়ে যাবে।

প্রিপেইড মিটারের সার্ভিস তার পরিবর্তন করতে কত টাকা খরচ হয়

প্রিপেইড মিটারের সার্ভিস তার পরিবর্তন করতে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত বিদ্যুৎ সেবার চার্জ অনুযায়ী সিঙ্গেল ফেজ মিটারে ৪৮৩ টাকা ও থ্রি ফেজ মিটারে ১১০৪ টাকা ব্যাংকে ফি জমা পূর্বক সার্ভিস তার পরিবর্তন করিয়ে নেওয়া যাবে। এ জন্য বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠানে সরাসরি গিয়ে আবেদন করতে হবে।

উপরে যে সকল কোড দেওয়া হয়েছে সেগুলো ইউনিফাইড মানে বর্তমানে যে সব মিটার বাজরে পাওয়া যায় সেসকল মিটারে কাজ করবে। বাংলাদেশে প্রচলিত সকল বৈদ্যুতিক প্রিপেমেন্ট মিটারের কোড এখানে একসাথে পাবেন।

আশা করছি মোটামুটি প্রিপেইড মিটারের সমস্যা ও তার সমাধান নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। আজকের প্রিপেইড মিটারের সমস্যা ও সমাধান (Prepaid Meter Somossa O Somadhan) নিবন্ধটি আপনাদের কাজে এসেছে। প্রিপেইড মিটারের সকল সমস্যার সমাধান আমাদের ওয়েবসাইটে পেয়ে যাবেন। ধন্যবাদ

5/5 - (7 votes)

“প্রিপেইড মিটারের সমস্যা ও সমাধান । Prepaid Meter Somossa O Somadhan 2024”-এ 4-টি মন্তব্য

  1. আমার মিটারে টাকা লোড করা যাচ্ছেনা। সবাই বলতেছে একাউন্ট লক করে রাখছে তাই। কিন্তু আমার পূর্বের কোন বকেয়া নাই। 010112003437 এটি আমার মিটার নাম্বার। এখন আমার মিটারে টাকা কিভাবে লোড করবো। জানাবেন দয়াকরে।

    জবাব

মন্তব্য করুন

x