বঙ্গবন্ধু টানেলের টোলের তালিকা । Bangabandhu Tunnel Toll

বঙ্গবন্ধু টানেলঃ বঙ্গবন্ধু টানেল হচ্ছে স্বপ্নের মত একটি প্রকল্প। বঙ্গবন্ধু টানেলের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশ টানেলের যুগে প্রবেশ করবে তাছাড়া দক্ষিণ এশিয়ায় নদী তলদেশের প্রথম ও দীর্ঘতম সড়ক সুড়ঙ্গপথ। বঙ্গবন্ধু টানেল বা কর্ণফুলী টানেল হলো কর্ণফুলী নদীর নিচে সুড়ঙ্গ সড়ক। এই সুড়ঙ্গের মধ্য দিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক যুক্ত হবে।

বঙ্গবন্ধু টানেল,Bangabandhu Tunnel
বঙ্গবন্ধু টানেল

গত ১৪ অক্টোবর ২০১৬ সালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিন পিং প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল নির্মাণের কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। টানেল নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১০ হাজার ৬৮৯ কোটি টাকা এর মধ্যে ৪ হাজার ৪৬১ কোটি ২৩ লাখ টাকা বিনিয়োগ করছে বাংলাদেশ সরকার ও চায়না এক্সিম ব্যাংক থেকে সহায়তা নেওয়া হয়েছে ৫ হাজার ৯১৩ কোটি টাকা।

চীনা প্রতিষ্ঠান China Communication and Construction Company Limited এই সুড়ঙ্গ নির্মাণ প্রকল্পের নির্মান কাজ করছে। বঙ্গবন্ধু টানেলের দৈর্ঘ্য ৩.৪৩ কিলোমিটার। কর্ণফুলী নদীর মধ্যভাগে কর্ণফুলী সুড়ঙ্গ সড়কটি অবস্থান করবে ১৫০ ফুট গভীরে।

এক নজরে বঙ্গবন্ধু টানেল প্রকল্প

  • বঙ্গবন্ধু টানেলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনঃ ১৪ অক্টোবর ২০১৬।
  • বঙ্গবন্ধু টানেলের কাজ শুরুঃ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯।
  • বঙ্গবন্ধু টানেলের দৈর্ঘ্যঃ ৩.৪৩ কিলোমিটার।
  • বঙ্গবন্ধু টানেলের নির্মানকারী প্রতিষ্ঠানঃ চায়না কমিউনিকেশন এ্যান্ড কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড (সিসিসিসি)।
  • বঙ্গবন্ধু টানেল শুরুঃ চট্টগ্রাম শহরপ্রান্তের নেভাল একাডেমি।
  • বঙ্গবন্ধু টানেল শেষঃ কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণ পাড়ের চিটাগাং ইউরিয়া ফার্টিলাইজার লিমিটেড এবং কর্ণফুলী ফার্টিলাইজার লিমিটেড কারখানার মাঝামাঝি।
  • গভীরতাঃ কর্ণফুলী নদীর মধ্যভাগে ১৫০ ফুট গভীর।
  • বঙ্গবন্ধু টানেলের নির্মান ব্যয়ঃ ১০ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা।
  • বঙ্গবন্ধু টানেলের সম্ভাব্য উদ্বোধনঃ ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩।
  • অর্থায়নঃ ২ শতাংশ হার সুদে ৫ হাজার ৯১৩ কোটি টাকা দিচ্ছে করছে চীনের এক্সিম ব্যাংক। বাকি ৪ হাজার ৪৬১ কোটি টাকা বাংলাদেশ সরকার এর নিজস্ব অর্থায়ন।

বঙ্গবন্ধু টানেলের টোলের তালিকা । Bangabandhu Tunnel Toll

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ বঙ্গবন্ধু টানেলে চলাচলকৃত গাড়ীর জন্য একটি টোল এর তালিকা অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের জন্য প্রস্তাব করা হয়েছিলো। প্রস্তাবিত টোল তালিকা অনুযায়ীই অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন দিয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়। টানেলের নির্মান ব্যায় লক্ষ্য করেই টোলের হার নির্ধারন করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু টানেলের টোলের (Bangabandhu Tunnel Toll) তালিকা নিম্নরুপঃ

  • প্রাইভেট কার, জিপ ও পিকআপঃ ২০০ টাকা।
  • মাইক্রোবাসঃ ২৫০ টাকা।
  • ৩১ বা তার চেয়ে কম আসনের বাসঃ ৩০০ টাকা।
  • ৩২ বা তার চেয়ে কম আসনের বাসঃ ৪০০ টাকা।
  • ৫ টন এর কমের ট্রাকঃ ৪০০ টাকা।
  • ৫ টন থেকে ৮ টনের কম ট্রাকেরঃ ৫০০ টাকা।
  • ৮ থেকে ১১ টনের ট্রাকঃ ৬০০ টাকা।
  • তিন এক্সেল ট্রাকঃ ৮০০ টাকা।
  • চার এক্সেল ট্রেইলরঃ ১০০০ টাকা।
  • চার এক্সেল এর বেশি ট্রেইলরঃ ১০০০ টাকা এবং প্রতি এক্সেল এর জন্য ২০০ টাকা।

আরো দেখুনঃ

বঙ্গবন্ধু টানেল এ মোটরসাইকেল এবং তিন চাকার যানবাহন চলবে কিনা?

আপাতত বঙ্গবন্ধু টানেল এর ভিতরে মোটরসাইকেল এবং তিন চাকার কোনো যানবাহন চলাচলের অনুমতি পাচ্ছে না।

বঙ্গবন্ধু টানেল সম্পর্কিত প্রশ্ন ও উত্তর

বঙ্গবন্ধু টানেল কি?

বঙ্গবন্ধু টানেল বা কর্ণফুলী টানেল হলো কর্ণফুলী নদীর নিচে সুড়ঙ্গ সড়ক।

বঙ্গবন্ধু টানেলের নির্মান ব্যায় কত?

বঙ্গবন্ধু টানেলের প্রাথমিক নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১০ হাজার ৬৮৯ কোটি টাকা।

বঙ্গবন্ধু টানেল কবে চালু হবে?

আগামী ২৮ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু টানেলের শুভ উদ্বোধনের তারিখ ঠিক করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু টানেলের দৈর্ঘ্য কত?

বঙ্গবন্ধু টানেলের দৈর্ঘ্য ৩.৩২ কিলোমিটার (২.০৬ মাইল)।

প্রিয় পাঠক, আশা করছি বঙ্গবন্ধু টানেলের টোলের তালিকা ও বঙ্গবন্ধু টানেল উদ্বোধন কবে? তা জানতে পেরেছেন। বঙ্গবন্ধু টানেল সম্পর্কিত কোন তথ্য যোগ করার প্রয়োজন মনে করলে কমেন্টে জানান। আমাদের সাধারণ জ্ঞান সেকশনে এমন আরো সমসাময়িক প্রশ্নের উত্তর বা তথ্য পেয়ে যাবেন। ধন্যবাদ

5/5 - (5 votes)

মন্তব্য করুন

x