বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু | BD President Info

বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু | BD President Info

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি পদের নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু ৷ মো. আবদুল হামিদের উত্তরসূরি হিসেবে তিনি হবেন বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি। গত ১২/০২/২০২৩ ইং তারিখ রবিবার সকালে মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিনের পক্ষে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে মনোনয়নপত্র জমা দেয়া হয়েছিল সে প্রেক্ষিতে ১৩/০২/২০২৩ ইং তারিখ সোমবার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

সূচীপত্র

president shahabuddin chuppu
রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু

রাষ্ট্রপতি নির্বাচন আইন, ১৯৯১ (১৯৯১ সনের ২৭নং আইন) এর ধারা ৭ এবং রাষ্ট্রপতি নির্বাচন বিধিমালা, ১৯৯১ এর বিধি ১২ এর উপ-বিধি (৬) অনুসারে নির্বাচনী কর্তা ও নির্বাচন কমিশনার এর ঘোষণা মোতাবেক  মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিনকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

আজকের নিবন্ধে বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু সম্পর্কে এক নজরে জানবো।

এক নজরে রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু

জন্ম

মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন আহমেদ চুপ্‌পু ১০ ডিসেম্বর ১৯৪৯ (বয়স ৭৩) শিবরামপুর, পাবনা সদর উপজেলা, পাবনা জেলায় জন্ম গ্রহন করেন। পিতার নাম শরফুদ্দিন আনছারী ও মাতা খায়রুন্নেসা।

শিক্ষা জীবন

১৯৬৬ সালে পাবনার এডওয়ার্ড কলেজ থেকে এসএসসি পাস করেন।

১৯৬৮ সালে এইচএসসি পাস করেন ।

১৯৭১ সালে (অনুষ্ঠিত ১৯৭২ সালে) বিএসসি পাস করেন।

১৯৭৪ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মনোবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন।

১৯৭৫ সালে পাবনা শহিদ অ্যাডভোকেট আমিনুদ্দিন আইন কলেজ থেকে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন। করেন।

কর্মজীবন

১৯৮০ থেকে দুই বছর দৈনিক বাংলার বাণীতে সাংবাদিকতা করেন। (পরে আইন পেশায় যোগ দেন এবং শুরুতে তিনি পাবনা জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য ছিলেন)।

১৯৮২ সালে বিসিএস (বিচার) ক্যাডারে তিনি মুন্সেফ (সহকারী জজ) পদে যোগদান করেন।

১৯৯৫ ও ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস এসোসিয়েশন-এর মহাসচিব নির্বাচিত হন।

২০০৬ সালে জেলা ও দায়রা জজ পদে দায়িত্ব পালন করে অবসরে যান।

২০১১ সালের ১৪ মার্চ তিনি দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার হিসেবে নিযুক্ত হন এবং ২০১৬ সালে অবসরে যান।

ব্যক্তিগত জীবন

১৯৭২ সালের ১৬ নভেম্বর রেবেকা সুলতানার সাথে বিবাহ-বন্ধনে আবদ্ধ হন। ড. রেবেকা সুলতানা বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে যোগ দিয়ে যুগ্ম-সচিব হিসেবে ২০০৯ সালে অবসরে যান। তিনি বর্তমানে প্রাইম এশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের হিউম্যান রিসোর্চ প্রোগ্রাম বিভাগের অধ্যাপক এবং ফ্রেন্ডস ফর চিলড্রেন অর্গানাইজেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু এক পুত্র সন্তানের জনক। সন্তানের নাম মো. আরশাদ আদনান (রনি)।

মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা

পাবনা জেলার স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ এর আহ্বায়ক ছিলেন। ১৯৭১ সালের ৯ এপ্রিল তিনি ভারতে যান এবং প্রশিক্ষণ নিয়ে পাবনা জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সক্রিয়ভাবে যুদ্ধ করেন।

রাজনৈতিক জীবন

সাহাবুদ্দিন ছাত্রজীবনে পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি

১৯৭৪ সালে পাবনা জেলা যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট সংঘটিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাণ্ডের পর তিনি কারাবরণ করেন।

মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সর্বশেষ ২২তম জাতীয় পরিষদে নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে খালি থাকা প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটির চেয়ারম্যান পদে তাকে মনোনীত করা হয়।

আরো দেখুনঃ

বাংলাদেশের সকল রাষ্ট্রপতির নাম ও কার্যকাল

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে বর্তমান সময়কাল পর্যন্ত সকল রাষ্টপতির নাম ও কার্যকাল এর তথ্য নিচে দেওয়া হলোঃ

অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার (১৯৭১-১৯৭২)

রাষ্ট্রপতির নামকার্যকালদল
শেখ মুজিবুর রহমান (বাংলাদেশের ১ম রাষ্ট্রপতি)১৭ এপ্রিল ১৯৭১ থেকে ১২ জানুয়ারি ১৯৭২বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
সৈয়দ নজরুল ইসলাম (অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি)১৭ এপ্রিল ১৯৭১ থেকে ১২ জানুয়ারি ১৯৭২বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

বাংলাদেশের সকল রাষ্টপতি ১৯৭২ থেকে চলমান

রাষ্ট্রপতির নামকার্যকালদল
আবু সাঈদ চৌধুরী১২ জানুয়ারি ১৯৭২ থেকে ২৪ ডিসেম্বর ১৯৭৩বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
মোহাম্মদউল্লাহ২৪ ডিসেম্বর ১৯৭৩ থেকে ২৫ জানুয়ারি ১৯৭৫বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
শেখ মুজিবুর রহমান২৫ জানুয়ারি ১৯৭৫ থেকে ১৫ আগস্ট ১৯৭৫বাকশাল
খন্দকার মোশতাক আহমেদ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ থেকে ৬ নভেম্বর ১৯৭৫বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম৬ নভেম্বর ১৯৭৫ থেকে ২১ এপ্রিল ১৯৭৭বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
জিয়াউর রহমান২১ এপ্রিল ১৯৭৭ থেকে ৩০ মে ১৯৮১বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
আবদুস সাত্তার৩০ মে ১৯৮১ থেকে ২৪ মার্চ ১৯৮২বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
পদ শূন্য ২৪ – ২৭ মার্চ ১৯৮২ পর্যন্ত
আ ফ ম আহসানউদ্দিন চৌধুরী২৭ মার্চ ১৯৮২ থেকে ১০ ডিসেম্বর ১৯৮৩নির্দলীয়
হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ১১ ডিসেম্বর ১৯৮৩ থেকে ৬ ডিসেম্বর ১৯৯০জাতীয় পার্টি
শাহাবুদ্দিন আহমেদ৬ ডিসেম্বর ১৯৯০ থেকে ১০ অক্টোবর ১৯৯১নির্দলীয়
আবদুর রহমান বিশ্বাস১০ অক্টোবর ১৯৯১ থেকে ৯ অক্টোবর ১৯৯৬বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
শাহাবুদ্দিন আহমেদ৯ অক্টোবর ১৯৯৬ থেকে ১৪ নভেম্বর ২০০১নির্দলীয়
একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী১৪ নভেম্বর ২০০১ থেকে ২১ জুন ২০০২বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
জমির উদ্দিন সরকার২১ জুন ২০০২ থেকে ৬ সেপ্টেম্বর ২০০২বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ৬ সেপ্টেম্বর ২০০২ থেকে ১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৯নির্দলীয়
জিল্লুর রহমান১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ থেকে ২০ মার্চ ২০১৩বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
আবদুল হামিদ১৪ মার্চ ২০১৩ থেকে ২৪ এপ্রিল ২০২৩বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন২৪ এপ্রিল ২০২৩ চলমানবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি সম্পর্কে প্রশ্ন ও তাহার উত্তর

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির নাম কি?

বাংলাদেশের ২২ তম রাষ্ট্রপতির নাম মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির মেয়াদ কত বছর?

রাষ্ট্রপতি কার্যভার গ্রহণের তারিখ হতে পাঁচ বৎসরের মেয়াদে তার পদে অধিষ্ঠিত থাকবেন: তবে শর্ত থাকে যে, রাষ্ট্রপতির পদের মেয়াদ শেষ হওয়া সত্ত্বেও তার উত্তরাধিকারী-কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত তিনি স্বীয় পদে বহাল থাকবেন।

রাষ্ট্রপতির বাসভবনের নাম কি?

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির সরকারি বাসভবনের নাম বঙ্গভবন।

বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতির নাম কি?

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাংলাদেশের প্রথম রাষ্টপতি।

বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট কে ছিলেন?

সৈয়দ নজরুল ইসলাম ছিলেন বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির বেতন কত?

দ্য প্রেসিডেন্টস (রেমুনারেশন অ্যান্ড প্রিভিলেজ) (সংশোধন) অ্যাক্ট অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির মাসিক বেতন হবে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা।

উপরে বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন চুপ্পু সম্পর্কে এক নজরে জন্ম,শিক্ষা,কর্মজীবন,ব্যক্তিজীবন ও রাজনৈতিক তথ্য সমূহ উপস্থাপন করার চেষ্টা করেছি আশা করছি আপনাদের কাজে লাগবে কোন ভূলত্রুটি পরিলক্ষিত হলে কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন।

5/5 - (2 votes)

মন্তব্য করুন

x